১. শুরুতেই শুদ্ধভাবে চর্চা করুন
মুখস্থ করার শুরুতেই শুদ্ধভাবে কুরআন পড়ার নিয়মগুলো জেনে রাখা উচিত। মাখরাজ, তাজউয়িদ, ওয়াকফ্ ইত্যাদি নিয়মগুলো মেনে পড়লে পরে ভুল হওয়া সম্ভবনা একদমই কম থাকে।

২. পড়ার পাশাপাশি শোনা
দেখে শেখার পাশাপাশি শোনাও শেখার একটি মাধ্যম আছে। যারা অন্ধ তারা কিন্তু শুনেই মুখস্থ করে। সুতরাং শেখার এই পদ্ধতিটাকে ছোট ভাবা যাবে না। মোবাইলের যুগে আমরা সহজেই বিশ্ববিখ্যাত কারীদের তিলওয়াত শুনে তাদের সাথে ঠোঁট মিলিয়ে নিজেদের তিলওয়াতটাকে শুদ্ধ করে নিতে পারি।

৩. মুখস্থ শেষে পরীক্ষা দেয়া
এই ধাপটি সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। কোনো একজন কুরআনের হাফিজের সাথে বসে যে অংশটুকু মুখস্থ করলেন তার একটা পরীক্ষা দেয়া যায়। অনেক সময় মনে হতে পারে আপনার তিলওয়াত শুদ্ধ হচ্ছে। এই ধাপে এসে আপনার তিলওয়াতে কিছু ভুল বের হতে পারে। যা আপনি তার কাছ থেকে শুধরে নিতে পারেন।

৪. বারবার চর্চা করা
মুখস্থ করা শেষ হলেও চর্চা না করে ফেলে রাখা উচিত নয়। হাটতে-চলতে যেকোনো সময় তিলওয়াত করার অভ্যাস করা ভাল। যখনই কোন জায়গায় সন্দেহ হবে তখনই পকেট থেকে মোবাইলটা বের করে ঠিক করে নেওয়া যাবে।

আপনার তিলওয়াতটি শুদ্ধ করেনিন উপরের ধাপগুলো অনুসরণ করে।