ইমাম মালেক রহিমাহুল্লাহ হিজরতের দেশ মদীনার ইমাম। তাঁর দাদা মালেক ইবন আবু আমের তাবেয়ীদের মাঝে বড় আলেম ছিলেন। শৈশবেই তিনি কুরআন মুখস্থ করেন। তারপর হাদীস মুখস্থ করায় মশগুল হন। এরপর আলেমদের মজলিসে যাওয়া-আসা শুরু করেন।

তিনি ৯৩ হিজরীতে জন্মগ্রহণ এবং ১৭৯ মৃত্যুবরণ করেন।

কেমন ছিল তা ইলমের চর্চা?

একবার ইমাম মালেক ঈদের দিনে ভাবলেন তার উস্তায ইবনে শিহাব নিশ্চয় আজকে নিরিবিলি আছেন। তিনি এই সুযোগটা হাতছাড়া করতে চাইলেন না। চলে গেলেন উস্তাযের কাছে। যাতে তিনি কিছু হাদিস মুখস্থ করে আসতে পারেন।

উস্তায জিজ্ঞেস করলেন,
– তুমি বাড়িতে যাওনি?
– না।

উস্তায ভাবলেন মালেক মনেহয় কিছু খেতে চায়। তিনি জিজ্ঞেস করলেন –
– তুমি কিছু খেতে চাও?
– না।

তিনি বললেন, তাহলে কি চাও?
ইমাম মালেক বললেন, আমাকে কিছু হাদিস শুনান।

তখন উস্তায হাদিসের নোট বের করলেন এবং চল্লিশটির মত হাদিস শোনালেন। ইমাম মালেক আরও শুনতে চাইলেন। কিন্তু উস্তায শুনালেন না। বললেন এটাই যথেষ্ট।

উস্তায বললেন, যদি তুমি এই হাদীসগুলো (মুখস্থ) শুনাতে পার তাহলে তুমি ‘হাদীসের হাফেয’।

ইমাম মালেক বললেন, আমি শুনাতে পারব। তখন উস্তায ইমাম মালেকের হাত থেকে খাতাগুলো নিয়ে নিলেন এবং বললেন, শুনাও দেখি!

তখন ইমাম মালেক সবক’টি হাদিস মুখস্থ শুনিয়ে দিলেন। তখন উস্তায বললেন “উঠে যাও। তুমি ইলমের ভাণ্ডার।”