জ্ঞান অর্জনের উদ্দেশ্যে ইমাম মালেক রহিমাহুল্লাহর শিক্ষক রাবীআহ ঘরের ছাদের কাঠ বিক্রি করে দিয়েছিলেন। অবস্থা এমন দাড়িয়েছিল যে, কখনাে কখনো তিনি ময়লা আবার্জনার স্থান থেকে খেজুর কুড়িয়ে খেয়ে দিনাতিপাত করতে বাধ্য হতেন।

পৈত্রিকভাবে সম্পদশালী এবং সুখে-শান্তিতে লালিত পালিত হওয়া ইমাম বুখারী রহিমাহুল্লাহর সম্পদও একসময় ইলম অর্জনের পথে ব্যয় হয়ে গিয়েছিল। উমার ইবনু হাফস বলেন, বাছরা শহরে আমরা ইমাম বুখারীর সাথে হাদীস লিখতাম। ইমাম বুখারী একসময় দারসে আসা বন্ধ করে দিলেন। আমরা তাঁর ঘর পর্যন্ত গেলাম তাঁর খোঁজখবর নিতে। দেখতে পেলাম তিনি এক অন্ধকার কুঠুরীতে পড়ে আছেন। শরীর আবৃত করার মত তার কাছে তেমন কোন পােশাক ছিল না। আমরা জানতে পারলাম, তাঁর সফরের পাথেয় শেষ হয়ে গেছে। পােষাক তৈরীর পয়সাটুকুও নেই। পরিশেষে ছাত্ররা টাকা জমা করল এবং ইমাম বুখারীর জন্য কাপড় ক্রয় করে এনে দিল। অতঃপর তিনি আমাদের সাথে পুণরায় দারসে আসতে শুরু করলেন। [ইত্তেবায়ে সুন্নাহ; মুহাম্মাদ ইকবাল কিলানী]

এভাবেই উম্মাহর ইমামগণ ইলম অর্জনের উদ্দেশ্যে ভ্রমণ করেছেন শহরের পর শহর, মাইলের পর মাইল, হেঁটে বেড়িয়েছেন শহর কিংবা গ্রামের অলিতে-গলিতে। এভাবে তাঁরা উম্মাহর উপর তাদের দায়িত্ব পালন করে গিয়েছেন।

বর্তমানে আমাদের জ্ঞান অর্জনের উদ্দেশ্যে তাদের মত কষ্ট করতে হয়না। একটি অ্যাপ কিংবা ওয়েবসাইটেই পেয়ে যায় হাজার হাজার হাদিস। তাইবাহ একাডেমিও চেষ্টা করছে দ্বীনের মৌলিক জ্ঞানটা সহজ এবং সুন্দর উপায়ে মানুষের কাছে পৌঁছাতে।

যারা দ্বীনের মৌলিক জ্ঞান অর্জন করতে চান সুন্দর কারিকুলাম এবং সাজানো-গোছানো সিলেবাসে এবং যারা জেনারেল শিক্ষিত হওয়ার কারণে কোথাও প্রাতিষ্ঠানিকভাবে পড়াশোনার সুযোগ পাচ্ছেন না অথবা গৃহিনী কিংবা চাকুরিজীবী হওয়ায় কারণে পড়াশোনার করার মত সময় বের করতে পারছেন না তাদের জন্য আমাদের একটি ক্ষুদ্র প্রয়াস “অনলাইন ডিপ্লোমা ইন ইসলামিক স্টাডিজ” কোর্স। ক্লাস এবং নোটগুলো আগে থেকে প্রস্তুত করা থাকে বলে নিজের সময় এবং সুযোগমত পড়াশোনা করতে পারবেন। ইনশাআল্লাহ কোর্সটির মাধ্যমে দ্বীনের জন্য অত্যন্ত অপরিহার্য মৌলিক জ্ঞান অর্জন করতে পারবেন।