মানুষের জেনোম হলো একজন মানুষের সকল জেনেটিক তথ্যভান্ডার যা একজন মানুষের দেহের যাবতীয় বৈশিষ্ট্য নির্ধারণ করে। চোখের রং থেকে স্বভাব – সবকিছুর তথ্যই জেনোমে থাকে।
বিজ্ঞানীরা একটি মানব কোষের সম্পূর্ণ জেনোম কোডগুলো লিখে একটি বইয়ের মাধ্যমে প্রকাশ করেছেন। বইটি লেখার পর এর খন্ড গিয়ে দাড়িয়েছে ১৩০ টি তে।
যাতে প্রতি পৃষ্ঠায় ৪৩,০০০ অক্ষর রয়েছে।
পুরো বইয়ে রয়েছে ৩শ কোটি অক্ষর।
আপনি প্রতি সেকেন্ডে ১ টি করে অক্ষর পড়লে আপনার সময় লেগে যাবে ৯৫ বছর।

একটি কোষের ৩শ কোটি অক্ষর এর মাঝ থেকে খুব ক্রিটিকাল অংশ থেকে মাত্র ২ টি অক্ষর মুছে দিলে ঘটতে পারে কোষের স্বাভাবিক কাজের মারাত্নক বিপর্যয়।
তার মানে এই অক্ষরগুলো শুধু অর্থবহই নয় –এই তথ্যগুলো আমাদের জীবন ধারণ করে।

মনে করুন আপনি কোনো জায়গায় ‘Danger’ কথাটি লিখা দেখলেন। এটা দেখে আপনাকে বুঝে নিতে হবে যে ঐ জায়গায় যাওয়াটা আপনার জন্য বিপজ্জনক। Danger কথাটিতে মাত্র ৬ টি অক্ষর যদি আপনাকে একটি স্থান সম্পর্কে যথেস্ট তথ্য দিতে পারে তাহলে একটি সম্পূর্ণ মানব শরীরে রয়েছে ৩শ কোটি অক্ষর কী পরিমাণ তথ্য বহন করে ভেবে দেখুন!

আল্লাহ আযযা ওয়া জাল্লা আমাদেরকে তাঁর নিদর্শনগুলো নানা ভাবে আমাদের প্রত্যক্ষ করান, তাঁর অসীম প্রজ্ঞার প্রমাণ দেন। কুরআন কারীমের বেশ কিছু আয়াতে তার ইঙ্গিতও দেওয়া আছে।