প্রশ্ন করা এবং উত্তর দেওয়ার আদব আলেম এবং তালেবে ইলমদের জন্য তো বটেই বরং আমরা যারা চাকরি কিংবা ব্যবসার কারণে কর্পোরেট জীবন অতিবাহিত করছি তাদের জন্যও জানা জরুরী। অনেক সময় ঠিকমত প্রশ্ন না শুনে উত্তর দিতে গিয়ে আমরা ভুল উত্তর দিয়ে ফেলি। যা নিজেদের হাসির পাত্রে পরিণত করে। এধরণের অনাকাঙ্ক্ষিতভাবে হাস্যরসে পরিণত হওয়া থেকে রক্ষা পেতে প্রশ্নোত্তরের আদবগুলো জানা খুবই জরুরী।

ইমাম ইয়াহইয়া ইবন খালিদ কয়েক লাইনে খুবই সুন্দর করে আদবগুলো তুলে ধরেছেন—

“কারো কথা পরিষ্কারভাবে বোঝার আগেই জবাব দিবে না। এতে তুমি এমন প্রশ্নের উত্তর দিয়ে ফেলতে পারো যে প্রশ্ন সে করেইনি! এতে তোমার মূর্খতা ছাড়া অন্যকিছু প্রমাণিত হবে না।
সুতরাং কথা বুঝে নিয়ে উত্তর দাও। ঠিকমত না বুঝেই উত্তর দেওয়ার জন্য তাড়াহুড়ো করো না।
কথা না বুঝলে স্পষ্ট করার জন্য বলতে লজ্জাবোধ করো না। স্পষ্টভাবে না বোঝার আগে উত্তর দেওয়া মূর্খতা।
সুতরাং বোঝার জন্য প্রশ্ন করো।
বোঝার জন্য প্রশ্ন করা চুপ থাকার চেয়ে প্রশংসনীয়।”

[জামি’উ বায়ানিল ইলমি ওয়া ফাদলিহি]